সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:৩৭ অপরাহ্ন

দেশের ক্ষতি হবে ৩ বিলিয়ন ডলার

লাইটনিউজ রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ, ২০২০

এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের প্রাক্কলনে করোনার প্রভাবে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ক্ষতির পরিমাণ তিন দশমিক দুই বিলিয়ন মার্কিন ডলার হতে পারে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

মঙ্গলবার রাজধানীতে নিজ বাসভবনে অর্থমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট দপ্তরের প্রধান-সচিবদের সঙ্গে করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে বাংলাদেশে সম্ভাব্য অর্থনৈতিক প্রভাব ও উত্তরণ নিয়ে বৈঠকে করেন। বৈঠক শেষে মন্ত্রী একথা বলেন।

বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, অর্থ সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন উপস্থিত ছিলেন। আসন্ন বাজেট নিয়েও প্রাথমিক আলোচনা হয়, বৈশ্বিক মহামারি করোনার প্রভাবে বাজেটে যাতে আর্থিক সংকট না হয় সেজন্য উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে বাজেট সহায়তা প্রাপ্তির বিষয়ে যোগাযোগ অব্যাহত আছে বলে জানান মন্ত্রী।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আজ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে। বাংলাদেশ ইতোমধ্যেই নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। গত বছর ৮ দশমিক ১৫ শতাংশ হারে আমাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। চলতি বছরে আমরা ৮ দশমিক ২০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জনে দিকে এগোচ্ছিলাম। কিন্তু প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস জনস্বাস্থ্যসহ বৈশ্বিক অর্থনীতির উপর নেতিবাচক থাবা বসাতে যাচ্ছে। বাংলাদেশও এই নেতিবাচক প্রভাব থেকে মুক্ত নয়। এই মুহূর্তে আমাদের সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার মানুষকে এই প্রাণঘাতী ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করা, পাশাপাশি প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর প্রয়োজনীয় আহারের ব্যবস্থা করা।

বাংলাদেশে করোনার সম্ভাব্য অর্থনৈতিক প্রভাব সম্পর্কে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিশ্বমহামারি করোনার প্রাদুর্ভাবে বাংলাদেশকে অন্য দেশের মতোই নানামুখী অর্থনৈতিক সমস্যার মোকাবিলা করতে হতে পারে। আমরা এখনো জানি না করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কতদিন প্রলম্বিত হবে। আমদানি ব্যয় ও রপ্তানি আয়ের পরিমাণ গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় কম হয়েছে। অর্থবছর শেষে এর পরিমাণ আরও কম হতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে।

‘হোটেল-রেস্টুরেন্ট, পরিবহও এবং অ্যাভিয়েশন সেক্টরের মতো সার্ভিস সেক্টরগুলোর উপর বিরূপ প্রভাব পড়বে। বিরূপ প্রভাব পড়বে বাংলাদেশের শেয়ার বাজারে। বিশ্বব্যাপী জ্বালানি তেলের চাহিদা হ্রাসের কারণে এর মূল্য ৫০ শতাংশের বেশি কমেছে, যার বিরূপ প্রভাব পড়তে শুরু করেছে প্রবাস আয়ের উপর। যেহেতু বিগত আট মাসে প্রবাস আয়ে ২১ শতাংশের মতো প্রবৃদ্ধি ছিল সেহেতু আগামী চারমাসে প্রবাস আয় কিছুটা কম হলেও বছর শেষে গত অর্থবছরের তুলানায় কম হবে না বলে আশা করা যায়।’

‘করোনা মোকাবিলা ও সম্ভাব্য অর্থনৈতিক প্রভাব থেকে উত্তরণে অর্থ বিভাগের অপ্রত্যাশিত ব্যয় ব্যবস্থাপনা খাত থেকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুকূলে ২৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।’

তিনি আরো বলেন, নিম্ন আয়ের মানুষের ‘ঘরে-ফেরা’ কর্মসূচির আওতায় নিজ নিজ গ্রামে সহায়তা দেওয়া হবে। গৃহহীন ও ভূমিহীনদের জন্য বিনামূল্যে ঘর, ৬ মাসের খাদ্য এবং নগদ অর্থ দেওয়া হবে। বিনামূল্যে ভিজিডি, ভিজিএফ ও ১০ টাকা কেজি দরে চাল সরবরাহ কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। রপ্তানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার একটি প্রণোদনা প্যাকেজের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

মুস্তফা কামাল বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমে ইতোমধ্যে ব্যবসাবান্ধব বেশকিছু উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক আগামী জুন মাস পর্যন্ত কোনো গ্রাহক যদি কিস্তি পরিশোধে অপরাগও হয় তথাপিও তাকে ঋণ খেলাপি না করার ঘোষণা দিয়েছে। এনজিওগুলোর ঋণের কিস্তি পরিশোধেও জুন পর্যন্ত কিস্তি পরিশোধে অপরাগ হলেও ঋণ খেলাপি করা হবে না। রপ্তানি আয় আদায়ের সময়সীমা দুই মাস থেকে বাড়িয়ে ছয় মাস করা হয়েছে।

লাইটনিউজ/এসআই

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Lightnewsbd

Developer Design Host BD