বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩, ০২:৫৯ পূর্বাহ্ন

রিজার্ভ চুরির ৭ বছর, ৮ কোটি ডলার উদ্ধারের চেষ্টা চলছেই

লাইটনিউজ রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩

বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে অর্থ চুরির সাত বছর আজ। দুই কোটি ডলার ফেরত পেলেও বাকি প্রায় আট কোটি ডলার ফেরত আনতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তবে সেই অর্থ ফেরত পাওয়া যাবে কি না বা পাওয়া গেলেও কত দিনে আসবে, তা এখনো নিশ্চিত নয়।

এদিকে বাংলাদেশের চুরি হওয়া অর্থ ফেরত পাঠাতে ফিলিপাইন সমঝোতায় বসবে না বলে জানিয়েছে। এমন প্রেক্ষাপটে এখন বাংলাদেশকে অর্থ ফেরত পেতে নির্ভর করতে হবে যুক্তরাষ্ট্রের আদালতের রায়ের ওপর।

আন্তর্জাতিক হ্যাকার চক্র ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি সুইফট সিস্টেম ব্যবহার করে ৩৫টি ভুয়া বার্তা পাঠিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউ ইয়র্কে (ফেড) রাখা বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব থেকে ১০ কোটি ১০ লাখ এক হাজার ৬২৩ মার্কিন ডলার চুরি করে। এর মধ্যে শ্রীলঙ্কায় পাঠানো দুই কোটি ডলার ফেরত পায় বাংলাদেশ। বাকি আট কোটির বেশি ডলার ফিলিপাইনের আরসিবিসি ব্যাংক হয়ে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছে চলে যায়, যা এখনো ফেরত পায়নি বাংলাদেশ। ওই অর্থ উদ্ধারে ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যানহাটান সাউদার্ন ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে মামলা করে বাংলাদেশ। মামলায় ফিলিপাইনের আরসিবিসি ব্যাংক, ডলার পেসোতে রূপান্তর করতে ব্যবহার করা ক্যাসিনোর মালিক কিম অংসহ ২০ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে বিবাদী করা হয়। তবে মামলার পর ২০২০ সালের মার্চ মাসে ম্যানহাটন সাউদার্ন ডিস্ট্রিক্ট কোর্ট জানিয়ে দেন, মামলাটি তাঁদের এখতিয়ারভুক্ত নয়। এরপর বাংলাদেশ ২০২০ সালের ২৭ মে নতুন করে যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট কোর্টে মামলা করে।

আদালত সমঝোতার নির্দেশ দিলে বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধিদল গত ২৮ জানুয়ারি ফিলিপাইনে পৌঁছে। প্রতিনিধিদলে রয়েছেন বাংলাদেশ ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান মো. মাসুদ বিশ্বাস, আইনজীবী ব্যারিস্টার আজমালুল হোসেন কিউসি, বিএফআইইউর ও অপরাধ তদন্ত বিভাগের দুজন করে কর্মকর্তা। প্রতিনিধিদল ফিলিপাইনের অ্যান্টি মানি লন্ডারিং কাউন্সিল, ডিপার্টমেন্ট অব জাস্টিস ও বার্নাস ল অফিসের সঙ্গে বৈঠক করেছে। গতকাল শুক্রবার এই তিন পক্ষের সঙ্গে একটি সমন্বয়সভা হয় বলে জানা গেছে। এ ছাড়া দেশটির মাকাতি, মান্ডলুয়ং ও প্যারানাক শহরের তিনটি আঞ্চলিক বিচারিক আদালতের শুনানিতে অংশ নিয়ে সাক্ষ্য দেওয়ার কথা ছিল। আর যুক্তরাষ্ট্রের আদালতের মামলা চালানোর জন্য বাংলাদেশকে সহায়তা করছে আইনি প্রতিষ্ঠান কোজেন ও’কনর।

বাংলাদেশের প্রতিনিধিদলের সদস্যরা বিভিন্ন পর্যায়ে আলোচনা ছাড়াও ফিলিপাইনের মুদ্রাবিনিময় প্রতিষ্ঠান ফিলরেমের সম্পত্তি ক্রোকের এক মামলায় সাক্ষ্য দেন। মিউচুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিস্ট্যান্সের আওতায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আবেদনের বিষয়েও শুনানি হয়।

এদিকে রিজার্ভ চুরির অর্থ পাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে বলে মনে করছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিট বাংলাদেশ ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) এক বিবৃতি থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

রিজার্ভ চুরির মামলায় বাংলাদেশ ব্যাংকের আইনজীবী আজমালুল হোসেন কিউসি বলেছিলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের আদালত নির্দেশ দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে সালিস মীমাংসা করার জন্য। এটা সেখানে স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এখন যেহেতু মামলার গ্রহণযোগ্যতা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, তাই আমরা মধ্যস্থতায় যাব। দেখব সমঝোতার মাধ্যমে টাকা ফেরত পাওয়া যায় কি না। তা না হলে আমাদের মামলা চলবে। এতে সময় একটু বেশি লাগবে। কিন্তু আমাদের যে সাক্ষ্য-প্রমাণ আছে, তাতে আমাদের অবস্থান অনেক শক্তিশালী।’

সর্বশেষ গত ১৩ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের আদালত একটি রায় দিয়েছেন। তাতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের অর্থ চুরির ক্ষেত্রে আরসিবিসির উদ্দেশ্যপ্রণোদিত যোগসাজশ ছিল। ব্যাংকটির নিউ ইয়র্কের হিসাব ও আরসিবিসির ফিলিপাইনের অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের সহযোগিতা না থাকলে ফেড থেকে ওই অর্থ অন্য কোথাও যাওয়ার সুযোগ ছিল না।

জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মেজবাউল হক বলেন, ‘রায় যেহেতু আমাদের পক্ষে এসেছে, তাই আমরা অর্থ ফিরে পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী।’

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Lightnewsbd

Developer Design Host BD