বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

মেসি জল্পনার অবসান, বার্সাতেই থাকছেন

সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিলেন মেসি। তিনি থাকছেন বার্সোলোনায়। সামনের বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত বার্সোলোনায় থাকছেন তিনি। সেই তারিখ পর্যন্তই বার্সার সঙ্গে তার চুক্তি আছে। গোলডটকমের সঙ্গে এক্সক্লুসিভ সাক্ষাতকারে মেসি সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে জানিয়ে দেন-‘ আমি কখনোই দলবদল নিয়ে আদালতে যেতে চাই না। কারণ বার্সেলোনা আমার ভালবাসার ক্লাব। এখন যদি এখনে আরো বছর খানেক থেকেই আমাকে পরে দলবদল করতে হয়, তাহলে আমি থেকে যাচ্ছি, এই মৌসুম থাকছি।’

মেসির এই ঘোষণার মধ্য দিয়েই তার দলবদলের সব রহস্যেরও সমাধান হয়ে গেল। খুব শিগগিরই বার্সোলোনার হয়ে প্রাক মৌসুম অনুশীলনে ফিরছেন বিশ্বসেরা ফুটবলার।

দলবদল নিয়ে তার বাবা ও ভাইয়ের সঙ্গে বার্সোলোনার প্রেসিডেন্ট মারিয়া বার্তোমেউ’র মধ্যকার কয়েকদফা বৈঠক শেষে নিজের এই সিদ্ধান্তের কথা জানান মেসি।

গত ২৫ অগাস্ট মেসি বার্সার প্রেসিডেন্টের কাছে ফ্যাক্সবার্তা পাঠিয়ে জানিয়ে দেন-তিনি দলবদল করতে চান। তাকে যেন বার্সা ছেড়ে দেয়। কিন্তু বার্সোলোনা সাফ জানিয়ে দেয়, ৭০০ মিলিয়ন ইউরোর রিলিজ ক্লজ ছাড়া মেসি অন্যত্র দলবদল করতে পারবেন না। চুক্তিপত্রে সেটাই লেখাই আছে। যদি ফ্রি ট্রান্সফারে দলবদল করতে হতো তাহলে অবশ্যই সেটা ১০ জুনের মধ্যে বার্সোলোনাকে মেসির জানাতে হতো। কিন্তু মেসি জানিয়েছেন অগাস্টের শেষ সপ্তাহে। আর তাই এখন দলবদল করতে হলে অবশ্যই রিলিজ ক্লজের এই বিপুল অঙ্ক বার্সার একাউন্টে জমা করতে হবে।

এরই মধ্যে বার্সার অনুশীলনও শুরু হয়ে যায়। মেসি অনুশীলনে যোগ দেননি। পরিস্থিতি যে পর্যায়ে পৌঁছেছিল তাতে মেসি যদি দলবদল করতেই চান তাহলে বার্সা ব্যাপারটা আদালতে নেয়ার হুমকিও দিয়ে বসে। মেসি এখানেই পিছু হটেন। যে ক্লাবে খেলে মেসি আজ বিশ্বজোড়া খ্যাতি পেয়েছেন। বিশ্বসেরা হয়েছেন। সেই ক্লাবের বিরুদ্ধে আদালতে তিনি কিভাবে দাঁড়াবেন? এই বোধশক্তি ও ভালবাসা থেকে মেসি অনিচ্ছাসত্বে আরেক মৌসুম বার্সায় থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এবং সেটা একপ্রকার বাধ্য হয়েই।

গোলডটকমের সঙ্গে সাক্ষাতকারে মেসি জানান-বছর খানেক ধরেই তিনি দলবদলের ব্যাপারে বার্সা প্রেসিডেন্টকে বলে আসছিলেন। ক্যারিয়ারের এই সময়টায় নতুন লক্ষ্য একটা স্থির করেছিলেন মেসি। বিশ্বের অন্য কোন লিগে খেলার অভিজ্ঞতা পেতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু বার্সা প্রেসিডেন্ট মেসিকে দেয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেননি।

এই প্রসঙ্গে মেসি বলেন-‘ আমি যখন তাকে দলবদলের কথা বলেছিলাম, তখন তিনি বলেছিলেন আমরা এটা নিয়ে এখন না, পরে কথা বলবো। কিন্তু তিনি তো কিছুই করলেন না। কোন কথাও বললেন না। তিনি আসলে কি করতে চেয়েছিলেন, কি বলতে চেয়েছিলেন সে সম্পর্কে আমাকে কোন ধারণাই দিলেন না। আমি কোন আবেগের বশে দলবদলের সিদ্ধান্ত নেয়নি। ভেবেচিন্তেই নিয়েছিলাম। আমি যদি ফ্যাক্সেও মাধ্যমে দলবদলের কথা না জানাতাম তাহলে কিছুই ঘটতো না।’

১০ জুনের মধ্যে সিদ্ধান্ত জানানোর চুক্তির শর্ত প্রসঙ্গে মেসি জানান-‘ মৌসুমের তখন মাঝপথ। তখন কি কিছু বলার সময়। প্রেসিডেন্ট শুধু আমাকে বলেছিলেন মৌসুম শেষ হোক, তখন তুমি যাবো না থাকবে সেই সিদ্ধান্ত জানিও। আমি তো তাই জানালাম। এখন তারা ১০ জুনের সময়সীমার উল্লেখ করছে। আমি আসলে আমার ক্লাবের সঙ্গে লড়াই করতে পারবো না। তাই আদালতে যাওয়ার কোন ইচ্ছে আমার নেই। আমি আরেক মৌসুম বার্সায় থাকছি। এই সময়জুড়ে আমি আমার সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করবো বার্সাকে।’

৩৩ বছর বয়সী মেসি জানান-‘বার্সা ছাড়ার সিদ্ধান্তটা অনেক কঠিন ছিল। আমার স্কুলে পড়া ছেলে থিয়াগো টিভিতে খবর দেখার পর আমাকে প্রশ্ন করেছিল বাবা কি হচ্ছে এসব? আমাদের অন্যত্র চলে যাওয়ার বিষয়, তার স্কুল বদলের বিষয়ে, তাকে নতুন বন্ধু তৈরি করতে হবে-এসব কিছু নিয়ে আমি তাকে কিছু বলতেই চাইনি।’

মেসির কাছ থেকে পরে বিস্তারিত শুনে ছেলে থিয়াগোও কান্না ধরা গলায় বলেছিলো-‘ যেও না’!

সেটাই আপাতত সত্যি হলো, মেসি বার্সায় থাকছেন আরো এক মৌসুম। তবে বার্সার জার্সিতে এটাই তার শেষ মৌসুম।

লাইটনিউজ/এসআই