বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

যেখানে প্রয়োজন সেখানেই শাটডাউন করা হবে

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, করোনা প্রতিরোধে সরকার কঠোরভাবে নজর দেবে। আন্তঃজেলায় যান চলাচল বন্ধের প্রয়োজন হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মোট কথা মানুষকে বাঁচাতে হবে। বাংলাদেশের যেখানে শাটডাউন প্রয়োজন সেখানেই তা করা হবে।

বুধবার (১৮ মার্চ) সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে ব্রিফিংয়ের সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘করোনা প্রতিরোধে সরকারিভাবে কঠোর নজর দেওয়া হচ্ছে। সাংবাদিকরাও সঠিক রিপোর্ট করবেন। আমরা আজ প্রাণঘাতী ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করছি। সব রাজনৈতিক দলের কাছে অনুরোধ, করোনা অভিন্ন শত্রু। এটি নিয়ে কোনো পলিটিক্স না করে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলা করতে হবে।’

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘পরিবহন মালিলিকরা হতাশ, যাত্রী কমে গেছে। এগুলো অটোমেটিক্যালি কমে যাবে। পরিস্থিতি সেদিকে যাচ্ছে। এরপর সরকার প্রয়োজন মনে করলে ব্যবস্থা নেবে।’

তিনি বলেন, ‘ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের ডিরেক্টর জেনারেল গতকাল যে বক্তব্য দিয়েছেন- সেখানে কথা একটাই ছিল, টেস্ট টেস্ট অ্যান্ড টেস্ট। তিনি টেস্ট শব্দটি তিনবার উচ্চারণ করেছেন। তিনি টেস্টের ওপর গুরুত্ব দিতে বলেছেন। আমরাও সেটি অনুসরন করে এগিয়ে যাব। সারাবিশ্বের জন্য এটি নতুন অভিজ্ঞতা। মানসিকভাবে আমরা ওয়েল ইক্যুয়িড। এটা একটা বড় শক্তি। আমরা এখন ইক্যুয়িপমেন্টের ঘাটতি পূরণের চেষ্টা করছি।’

মন্ত্রী বলেন, ‘শত্রু করোনা ভয়ংকর। আমেরিকার মতো বিরাট শক্তিশালী দেশেও বিভিন্ন এয়ারপোর্টে স্ক্রিনিং বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছিল। আমাদের তো অভিজ্ঞাতা নেই। তবুও ভুল থেকে শিক্ষা নিচ্ছি। এ যুদ্ধের প্রতিপক্ষ শক্তিশালী। তার চেয়েও বেশি শক্তিশালী আমরা। সম্মিলিতভাবে চেষ্টা করলে আমরা এটিকে পরাজিত করতে পারব।’

তিনি বলেন, ‘আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে, সভা-সমাবেশে যাব না। সেজন্য বঙ্গবন্ধুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সীমিত করেছি। টুঙ্গিপাড়ার মানুষের ঢল নামার কথা, সেখানে আমরা অনেক সীমিত করেছি।’

এ সময় তিনি করোনা মোকাবিলায় সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।