বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

আক্রান্তে শীর্ষে ঢাকা, এরপর নারায়ণগঞ্জ-গাজীপুর

দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যায় শীর্ষে ঢাকা। এরপর সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্ত এলাকা হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর। জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) হিসাবে এ তথ্য উঠে এসেছে।

শনিবার রাতে আইইডিসিআর তাদের ওয়েবসাইটে করোনা পরিস্থিতির হালনাগাদ তথ্য প্রকাশ করে। এই তথ্য অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংখ্যক করোনা রোগী ঢাকায় শনাক্ত হয়েছে। ঢাকা শহরে এখন পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছেন ৮৪৩ জন।

করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ৩২ শতাংশই ঢাকার বাসিন্দা। এরপরেই রয়েছে নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর জেলার অবস্থান।

ঢাকা বিভাগের অন্যান্য জেলায় শনাক্তের সংখ্যা ৭৬৩। ঢাকার পর এই বিভাগের অন্যান্য জেলার মধ্যে শনাক্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি নারায়ণগঞ্জে। এরপর গাজীপুর ও নরসিংদীতে। এই তিন জেলায় শনাক্তের সংখ্যা যথাক্রমে ৩০৯, ১৬১ ও ৯৩ জন।

একক মহল্লা হিসেবে হিসেবে সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্ত হয়েছে মিরপুরের টোলারবাগে। সেখানে কোভিড-১৯ শনাক্ত হয়েছেন ১৯ জন। আরেকটি এলাকা শাঁখারীবাজারে আক্রান্ত ১০ জন। বাসাবোতে আক্রান্ত হয়েছেন ১৭ জন।

ঢাকার তেজগাঁওয়ে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৬ জনের। বংশাল, গেন্ডারিয়া ও হাজারীবাগেও শনাক্ত হয়েছেন ১৬জন করে রোগী। গুলশানে শনাক্ত হয়েছেন ১৪ জন।

রাজারবাগ, আজিমপুর ও মিরপুর-১১ প্রতিটা এলাকায় ১৩ জন করে রোগী শনাক্ত হয়েছেন। চকবাজার ও মহাখালীতে ১২ জন বাসিন্দা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। মগবাজার, বাবুবাজার ও মিরপুর-১২ তে ১১ জন করে আক্রান্ত হয়েছেন। ঢাকার গ্রীনরোডে শনাক্ত হয়েছেন ১০ জন।

সূত্রাপুরে ৯ জন, মিরপুর-১, বাড্ডা ও বনানীতে ৮ জন করে রোগী শনাক্ত হয়েছেন। মিরপুর-১০ এ শনাক্ত হয়েছেন সাতজন। বসুন্ধরা, ইস্কাটন, মিরপুর-১৪ ও শাহবাগে ছয়জন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

আদাবর, আগারগাঁও, জিগাতলা, লক্ষ্মীবাজার, নাখালপাড়া, রমনায় পাঁচজন করে রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এছাড়া ঢাকার অন্যান্য অনেক এলাকায় কয়েকজন করে রোগী শনাক্ত হয়েছেন।

সরকারি হিসাবে দেশে রোববার পর্যন্ত মোট করোনা আক্রান্ত হলেন ২ হাজার ৪৬৫ জন। আর করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৯১ জনের। আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়েছেন ৬৬ জন।

লাইটনিউজ/এসআই