বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

তামিম বললেন, ‘তবে বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল খেলত বাংলাদেশ’

স্পোর্টস ডেস্ক : গেল বিশ্বকাপের আগে প্রস্তুতিটা দুর্দান্ত হয়েছিল বাংলাদেশের। বিশ্বকাপের আগ মুহূর্তে আয়ারল্যান্ডের মাটিতে দুর্দান্ত পারফর্ম করেছিল টিম টাইগার। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দু’বার হারিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল মাশরাফি বিন মুর্ত্তজার দল। সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, সৌম্য সরকাররা রান পেয়েছিলেন। বল হাতে দুর্দান্ত পারফর্ম করেন মোস্তাফিজুর রহমান আর অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্ত্তজাও। তবে বিশ্বকাপে সাকিব অতিমানব হয়ে উঠলেও প্রত্যাশা মেটাতে পারেননি বাকিরা।

মাশরাফি বিন মুর্ত্তজার বিশ্বকাপটা কেটেছে বড্ডই বাজে। পুরো বিশ্বকাপে মাত্র এক উইকেট পেয়েছিলেন তৎকালীন ওয়ানডে অধিনায়ক। তামিম রান পেলেও স্ট্রাইক রেট প্রত্যাশিত ছিল না। তামিম মনে করছেন, বিশ্বকাপে বাকিরা সাকিবকে যদি আর একটু সমর্থন দিতে পারতেন আর তিনি নিজে এবং মাশরাফি বিন মুর্ত্তজা যদি আর ২৫ শতাংশ ভালো খেলতে পারতেন তবে সেমিফাইনালে পৌঁছে যেত বাংলাদেশ।

সোমবার (৪ মে) রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের লাইভ আড্ডায় যুক্ত হয়েছিলেন তামিম ইকবাল ও মাশরাফি বিন মুর্ত্তজা। দুই অধিনায়কের (একজন সাবেক, অন্যজন বর্তমান) বিভিন্ন আলোচনার মাঝে উঠে এসেছে বিশ্বকাপের সেই আক্ষেপের গল্প।

তামিম বলেন, ‘আমি মনে করি, আমি আর আপনি (মাশরাফি) যদি সামর্থ্যের আর ২৫ শতাংশ ভালো খেলতাম তাহলে আমরা সেমিফাইনাল খেলতে পারতাম। আপনি নতুন বলে উইকেট নিতেন নিয়মিতভাবে, বিশ্বকাপে আমরা সেটা পাচ্ছিলাম না। আমি যে সাকিবের সঙ্গে লম্বা জুটি গড়ব সেটাও হচ্ছিল না। সব মিলিয়ে আমি মনে করি, আমরা দু’জন আর ২৫ শতাংশ ভালো খেলতে পারলেই সেমিতে যেতে পারতাম।’

বিশ্বকাপে সাকিব আল হাসানের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের প্রসঙ্গ তুলেছেন মাশরাফি। তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপে সাকিব যখন তিনে খেলতে চাইলো, সেটা নিয়ে অনেক কথা হয়েছে। সাকিব আত্মবিশ্বাসী ছিল যে ও তিনে খেলবে। তুইও (তামিম) মনে করেছিলি যে ওর তিনে খেলা ঠিক হবে না। কিন্তু সাকিব আত্মবিশ্বাসী ছিল। ফলে আমি ওকে পূর্ণ সমর্থন দিয়েছি। সব মিলিয়ে সে দুর্দান্ত পারফর্ম করেছে। তবে সে যে পারফর্মটা করেছে সেটা আমরা দল হিসেবে কাজে লাগাতে পারিনি। আমি নিজেও ভালো খেলতে পারিনি।’

গত ওয়ানডে বিশ্বকাপে ৮ ম্যাচে ৮৬ দশমিক ৫৭ গড়ে ৬শ ৬ রান করেন সাকিব। নামের পাশে দুটি সেঞ্চুরি পাশাপাশি ছিল পাঁচটি হাফ সেঞ্চুরিও। কেবল ব্যাট হাতেই বিধ্বংসী ছিলেন না সাকিব, সেই সঙ্গে বল হাতে বাঁহাতের ঘূর্ণিতে নিয়েছিলেন ১১টি উইকেটও। সব মিলিয়ে সাকিবের বিশ্বকাপটা দুর্দান্ত কাটলেও দলের বাকিরা নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী পারফর্ম করতে ব্যর্থ হওয়ায় প্রত্যাশা পূরণ করতে ব্যর্থ হয় বাংলাদেশ দল। এসব কথাই ফেইসবুক লাইভে জানালেন সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি আর বর্তমান ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম।

লাইট নিউজ