বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

নিরাপদে শুরু হচ্ছে লা লিগা

 

শুক্রবার ব্যক্তিগতভাবে অনুশীলনে ফিরেছেন লিওনেল মেসিরা। ফিরেছেন বার্সেলোনার মেসির অন্যান্য সতীর্থও। এ দিকে লা লিগা কর্তৃপক্ষ অংশগ্রহণকারি খেলোয়াড়দের করোনাভাইরাস টেস্ট করা শুরু করেছে।

সর্বশেষ তথ্য মতে জুন মাসে দর্শকবিহীন মাঠে লা লিগা পুনরায় শুরু হবে। তার আগে, ধাপে ধাপে খেলোয়াড়রা করোনাভাইরাসমুক্ত কি না তা পরীক্ষা করে দেখবে কর্তৃপক্ষ।

চারটি ভিন্ন ধাপে খেলোয়াড়রা মাঠে ফিরবেন। প্রথম ধাপে অনুশীলনের প্রস্তুতি নিবেন খেলোয়াড়রা। এরপর ব্যক্তিগত অনুশীলন করবেন, গ্রুপ অনুশীলন করবেন এবং শেষ থাকে এক যোগে অনুশীলন করবেন।

করোনাভাইরাস টেস্ট
ব্যক্তিগত অনুশীলনের দুদিন আগে খেলোয়াড়দের পরীক্ষা করা হচ্ছে। খেলোয়াড়দের সাথে কোচিং স্টাফ, ক্লাব কর্তৃপক্ষ এবং আরো যারা অনুশীলনের অংশ, সবাইকে পরীক্ষা করা হচ্ছে।গ্রুপ অনুশীলন শুরু হলে সবাইকে একবার করে পরীক্ষা করা হবে। এ ছাড়া অন্যান্যদের পুরো আয়োজনের ভিন্ন ভিন্ন ধাপে অন্তত তিনবার করে করোনাভাইরাসের জন্য পরীক্ষা করা হবে।

যদি কারো পজিটিভ হয়, তাহলে তাকে আইসোলেশনে থাকতে হবে এবং তার সংস্পর্শে আসা অন্যদেরও পরীক্ষার ফলাফল আসার আগ পর্যন্ত আইসোলেশনে থাকতে হবে।

ব্যক্তিগত অনুশীলন
প্রতিটি তার থাকার জায়গা থেকে নিজস্ব ব্যবস্থায় অনুশীলনে যোগ দিবেন এবং নিজেদের খেলার সামগ্রী নিজেরা বহন করবেন।এক সাথে সর্বোচ্চ ছয়জন খেলোয়াড় অনুশীলন করতে পারবেন। অনুশীলনের পর সবাইকে একটি জীবাণুমুক্ত ব্যাগে নতুন সামগ্রী দেওয়া হবে। অনুশীলনের দিন ময়লা হওয়া সামগ্রী ক্লাব কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেওয়া হবে এবং তা ধুয়ে ও জীবাণুমুক্ত করে খেলোয়াড়দেরে পরের দিন সরবারহ করা হবে।

গ্রুপ অনুশীলন
গ্রুপ অনুশীলনের সময় খেলোয়াড়রা একটি টিম হোটেলে থাকবেন। সেখানে কোচিংড স্টাফ এবং ক্লাব কর্তৃপক্ষও থাকবেন।মূল টিমের খেলোয়াড়রা আট জন করে একটি গ্রুপে ভাগ হয়ে অনুশীলন করবেন এবং প্রতিটি গ্রুপ আলাদা আলাদা সময়ে অনুশীলন করবেন।

গ্রুপ অনুশীলনের সময় ড্রেসিং রুম ব্যবহার করা যাবে। তবে এক সাথে তিনজনের বেশি খেলোয়াড় থাকতে পারবেন না। প্রত্যেক খেলোয়াড়কে যথাসম্ভব সর্বোচ্চ দূরত্ব বজায় রেখে থাকতে হবে।

অনুশীলনের পর খেলোয়াড়দের ড্রেসিং রুমে গোসল করার অনুমতি দেওয়া হবে। গোসলের পর অনুশীলনের পোশাক একটি বালতিতে রেখে দিতে হবে। প্রতিটি ভিন্ন ভিন্ন গ্রুপের অনুশীলনের পর এই ড্রেসিং রুম ও গোসলখানা পরিষ্কার করা হবে।

খেলোয়াড়রা ক্যান্টিন ব্যবহার করতে পারবেন। তবে এক সাথে এক গ্রুপের বেশি নয়। এ সময় তাদেরকে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে এবং সবাইকে আলাদা আলাদা ব্যাগে খাবার সরবারহ করা হবে।

একযোগে অনুশীলন
এরপর শুরু হবে পুরো দমে অনুশীলন। কিন্তু এই পর্যায়েও সব কিছু পরিষ্কার রাখার আগের প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হবে এবং সবাইকে আগের প্রক্রিয়া মেনে চলতে হবে।

কোচিং স্টাফ ও অন্যান্য স্টাফদের সার্বক্ষণিকভাবে ফেস মাস্ক ও গ্লফস পড়তে হবে।

ফুটবল বিশ্বের প্রতিক্রিয়া

সরকারি তথ্য মতে স্পেনে ২৬ হাজার লোক করোনাভাইরাসের মারা গেছেন এবং মোট আক্রান্ত হয়েছেন দুই লাখ ২২ হাজারের বেশি।

লা লিগা প্রেসিডেন্ট হ্যাভিয়ের টেবাস ফুটবল মাঠে ফেরানোর চেষ্টা কথা মোটেই গোপন করেননি। তবে সাথে এই কথাও বলেছেন যে, মানুষের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার উপরে কোনো কথা নেই এবং এই কারণেই শক্ত নিয়মনীতি প্রণয়ন করা হয়েছে।

তিনি বলেন, “আমরা এক কঠিন পরিস্থিতির মুখে পড়েছি। তবে আবার খেলা শুরু করার বিষয়ে এবং গ্রীষ্মেই আমাদের এই মৌসুম শেষ করার বিষয়ে আমি আশাবাদী।”

লা লিগার পয়েন্ট টেবিলে বার্সার পরেই আছে রিয়াল মাদ্রিদ। দলটি সোমবার থেকে ব্যক্তিগত অনুশীলন শুরু করবে। দলটির অধিনায়ক সার্জিও রামোস বলেছেন, “খেলার জন্য, প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য তর সইছে না।”

বার্সেলোনার মিডফিল্ডার ইভান রাকিতিচ বলেন, “আমার মনে হয় ফুটবল সংশ্লিষ্ট সবার এগিয়ে আসা উচিত।”

তবে লা লিগার দল এইবার থেকে দুশ্চিন্তা প্রকাশ করা হয়েছে। তারা একটি বিবৃতিতে বলেছে, “আমরা সবচেয়ে পছন্দ করি যে খেলাকে, সেটি খেলতে গিয়ে করোনাভাইরাসের নতুন প্রাদুর্ভাব শুরু হতে পারে। আমরা আমাদের পরিবার, বন্ধু-বান্ধব সবাইকে ঝুঁকিতে ফেলতে পারি।”

লাইট নিউজ