বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

ফরিদপুরে করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা হাজার ছাড়াল

ফরিদপুরে পুলিশ, র‍্যাব, স্বাস্থ্যকর্মী, ভূমি অফিসের কর্মকর্তা ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাসহ নতুন করে আরও ৫১ জন করোনাভাইরাস সংক্রমিত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাতে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজে স্থাপিত করোনা শনাক্তকরণ ল্যাব সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। এই নিয়ে ফরিদপুরে মোট করোনা শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১ হাজার ৩২।

নতুন করে শনাক্তদের মধ্যে দুজন পুলিশ সদস্য, একজন র‍্যাব সদস্য, তিনজন স্বাস্থ্যকর্মী, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের একজন কর্মকর্তা ও ভূমি অফিসের এক কর্মকর্তা রয়েছেন। নতুন শনাক্ত হওয়া ৫১ জনের মধ্যে ফরিদপুর সদরে ৩৮ জন, বোয়ালমারী ও চরভদ্রাসনে ৩ জন করে, ভাঙ্গা, সালথা ও নগরকান্দায় ২ জন করে এবং আলফাডাঙ্গায় ১ জন রয়েছেন।

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের করোনা শনাক্তকরণ ল্যাবে গতকাল বুধবার ২৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৮৮ জনের। এই ৮৮ জনের মধ্যে ফরিদপুরে দুজন পুরোনো রোগীসহ ৫৩ জন, রাজবাড়ীতে ৩ জন, মাদারীপুরে ১ জন ও গোপালগঞ্জে ৩১ জন রয়েছেন।

ফরিদপুরে এ পর্যন্ত করোনা শনাক্ত ১ হাজার ৩২ জনের মধ্যে ফরিদপুর সদরে ৩০৯ জন, চরভদ্রাসনে ৭২ জন, ভাঙ্গায় ২৩৬ জন, বোয়ালমারীতে ১৫৪ জন, সদরপুরের ৬৭ জন, নগরকান্দায় ৬৫ জন, সালথায় ৪৯ জন, আলফাডাঙ্গায় ৪৭ জন ও মধুখালীতে ৩৩ জন রয়েছেন।

ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান বলেন, ‘ফরিদপুরের করোনা পরিস্থিতি দিনে দিনে অবনতির দিকে যাচ্ছে। আমরা সমগ্র জেলা লকডাউন না করে বিভিন্ন উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে বিভিন্ন গ্রাম সীমিত আকারে লকডাউন করার কথা চিন্তাভাবনা করছি। ইতিমধ্যে ভাঙ্গা পৌর এলাকা ও একটি ইউনিয়ন লকডাউন করা হয়েছে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে বোয়ালমারীর কয়েকটি এলাকার লকডাউনের আওতায় আনা হবে। সার্বিক পরিস্থিতি আমরা গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছি।’

ফরিদপুরের সিভিল সার্জন ছিদ্দীকুর রহমান বলেন, করোনায় আক্রান্ত রোগীদের বাড়িতে থেকেই চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে। তবে বেশি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁদের করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে স্থানান্তর করা হবে। তিনি বলেন, বুধবার দিবাগত রাতে ফরিদপুরে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। তিনি সদর উপজেলার একটি গ্রামের বাসিন্দা।

লাইট নিউজ