বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

৯৮-এর বন্যার তুলনায় এবার ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কম

এবারের বন্যায় দেশের ৩৩ জেলায় বিভিন্ন খাতে মোট ৫ হাজার ৯৭২ কোটি ৭৪ লাখ ৬২ হাজার ৭৬ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান।

আজ মঙ্গলবার (২৫ আগস্ট) আন্তঃমন্ত্রণালয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটির সভা শেষে বন্যা পরবর্তী সার্বিক বিষয়ে তিনি এ তথ্য জানান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ক্ষয়ক্ষতির চিত্র অনুযায়ী মন্ত্রণালয়গুলো পুনর্বাসন পরিকল্পনা নেবে। দেশের ৩৩ জেলা বন্যাকবলিত হয়েছে, সবমিলিয়ে ৪০ জেলা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এবারের বন্যায় ঘরবাড়ি, আশ্রয়কেন্দ্র, গবাদিপশু, শস্যক্ষেত ও বীজতলা, মৎস্য খামার, স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, বিদ্যুৎ লাইন, মোবাইল ফোন লাইন, টেলিফোন টাওয়ার, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, সড়ক, ব্রিজ-কালভার্ট, নদী, হাওর, নৌকা-ট্রলার, বাঁধ, জাল, বনাঞ্চল, নার্সারি, কৃষি, নলকূপ, ল্যাট্রিন, জলাধার, হাসপাতাল-ক্লিনিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানান ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী।

ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, বন্যা নিয়ন্ত্রণে অনেক পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে বাংলাদেশ একটি বন্যা সহনীয় রাষ্ট্রে পরিণত হবে। ৯৮ বন্যার তুলনায় এবারে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ কম। সেসময় প্রায় ৪০ জেলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। এবার ৩৩ জেলা। একইভাবে সে সময় প্রায় ৫০ ভাগ এলাকা প্লাবিত হয়, এবার প্লাবিত হয়েছে ৩০ ভাগ এলাকা। সেই সময় বন্যা স্থায়ী হয়েছিল ৬৯ দিন, এবার ৪৬ দিন।

দীর্ঘ মেয়াদি বন্যা থেকে পরিত্রাণ বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, নদী শাসন, নদী ভাঙন রোধে নানা প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। সুরমা, মাতামুহুরি নদী শাসনের ইতোমধ্যে প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে পদ্মা, যমুনা নদী শাসনেরও পদক্ষেপ নেয়া হবে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে বাংলাদেশ একটি বন্যা সহনীয় রাষ্ট্রে পরিণত হবে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, আমাদের পর্যাপ্ত চাল মজুত আছে। প্রায় ১৩ লাখ মেট্রিক টনের মতো। আমরা আরও মজুদের চেষ্টা করছি।

লাইট নিউজ