বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

সেপ্টেম্বরেই বিছনাকান্দি ভ্রমণের উপযুক্ত সময়

আমরা সবাই জানি অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি সিলেট জেলার গোয়াইনঘাট উপজেলার রুস্তমপুর ইউনিয়নের একটি গ্রামের মধ্যে অবস্থিত। তবে বিছনাকান্দির মায়াময় সৌন্দর্য উপভোগ করতে হলে জুন সেপ্টেম্বরেই আদর্শ সময়। চারদিকে প্রচুর পানি প্রবাহ থাকার কারণে এ সময় বিছনাকান্দির প্রকৃত সৌন্দর্য দেখা যায়। শুকনো সময়ে এখন পাথরখোকোদের জন্য বিছনাকান্দি ভ্রমণ ততটা উপযুক্ত নয়। কিন্তু বর্ষায় পাথর তৈরির উৎপাত না থাকার কারণে পাহাড়, নদী, ঝর্ণা ও মেঘের সমন্বয়ে বিছনাকান্দি হয়ে ওঠে অনিন্দ্য সুন্দর এক গন্তব্য।

বিছনাকান্দি গেলে দেখতে পাবেন পাথরের পর পাথর যেন বিছানা পেতে শুয়ে আছে। সেইসঙ্গে মেঘালয় পাহাড় থেকে আসা ঠাণ্ডা পানি আর সবুজের সমারোহ ক্ষণিকের জন্য হলেও অন্য এক জগতে নিয়ে যাবে।

বিছনাকান্দিতে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে খাসিয়া পাহাড়ের অনেকগুলো ধাপ দুই পাশ থেকে এক বিন্দুতে এসে মিলেছে। পাথরের খাঁজে রয়েছে সুউচ্চ ঝর্ণা। ভ্রমণবিলাসীদের জন্য এই স্পটের মূল আকর্ষণ হলো পাথরের ওপর দিয়ে বয়ে চলা পানির প্রবাহ। তাছাড়া বর্ষায় থোকা থোকা মেঘ আটকে থাকে পাহাড়ের গায়ে, দেখে মনে হতে পারে মেঘেরা কোলে বাসা বেঁধেছে।

পূর্ব দিক থেকে পিয়াইন নদীর একটি শাখা পাহাড়ের নিচ দিয়ে চলে গেছে ভোলাগঞ্জের দিকে। সব মিলিয়ে পাহাড়, নদী, ঝর্ণা আর পাথরের এক সম্মিলিত ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি এই বিছনাকান্দি। সম্প্রতি বছরগুলোতে এখানকার নদী দেখতে পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

যেভাবে যাবেন বিছানাকান্দি:

দেশের যেকোনো স্থান থেকে বিছনাকান্দি যাওয়ার জন্য আপনাকে প্রথমে সিলেট জেলা শহরে যেতে হবে। তারপর সিলেট থেকে বিছানাকান্দি যেতে হবে।

ঢাকা থেকে সিলেট যাবেন যেভাবে:

ঢাকা থেকে বাসে বা ট্রেনে অথবা প্লেনে আপনি সিলেট যেতে পারবেন। ফকিরাপুল, সায়দাবাদ, ও মহাখালী বাসস্টেশন গ্রীন লাইন, শ্যামলি, সৌদিয়া, এস আলম ও এনা পরিবহনের এসি বাস যাতায়াত করে। এছাড়াও ঢাকা থেকে সিলেট যেতে শ্যামলী, হানিফ, ইউনিক ও এনা পরিবহনের নন এসি বাস জনপ্রতি ৪০০ থেকে ৫৫০ টাকা ভাড়ায় পাবেন। ঢাকা থেকে ট্রেনে করে সিলেট যেতে কমলাপুর কিংবা বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন থেকে উপবন, জয়ন্তিকা, পারাবত অথবা কালনী এক্সপ্রেস ট্রেনকে বেছে নিতে পারেন আপনার ভ্রমণসঙ্গী হিসেবে। ট্রেনে যেতে সময় লাগবে সাড়ে ছয় থেকে সাত ঘণ্টা।

ঢাকা থেকে সবচেয়ে দ্রুত সময়ে ও সাচ্ছন্দে যেতে আকাশ পথকে বেছে নিতে পারেন। শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বিমানবন্দর থেকে বিমান বাংলাদেশ, রিজেন্ট এয়ার, ইউনাইটেড এয়ার, নভো এয়ার এবং ইউএস বাংলা এয়ারের বিমান প্রতিদিন সিলেটের উদ্দেশে ছেড়ে যায়।