বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

সাদা চালের ভাতে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি ২৭ শতাংশ বেশি

আমাদের দেশের সব অঞ্চলের মানুষেরই প্রধান খাদ্য সাদা চালের ভাত। সঙ্গে দৈনন্দিন বিভিন্ন রেসিপিতেও থাকে সাদা চালের ব্যবহার। পিঠা থেকে শুরু করে বিরিয়ানি কিংবা ক্ষীর-পায়েসেও সাদা চাল। অথচ আপনি জেনে শঙ্কিত হবেন যে- সাদা চালের ভাত খাওয়া ডায়াবেটিসের জন্য চরম ঝুঁকিপূর্ণ!

হাভার্ড স্কুল অব পাবলিক হেলথ ও ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত আন্তর্জাতিক দু’টি গবেষণা দলের বরাত দিয়ে ভারতের প্রভাবশালী গণমাধ্যম এনডিটিভি তাদের এক প্রতিবেদনে এমন তথ্যই জানিয়েছেন। প্রতিবেদনে বলা হয়- গবেষকরা টানা ১০ বছর ধরে ২১টি দেশের ১ লাখ ৩২ হাজার ৩৭৩ জন মানুষের উপর গবেষণা পরিচালনা করেছেন।

গবেষণায় বিভিন্ন শ্রেণি-পেশা ও বয়সের মানুষকে ভিন্ন ভিন্ন ক্যাটাগরিতে রেখে পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে। তবে অংশগ্রহণকারীদের বয়স ৩৫ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ছিল। ওই গবেষণা প্রতিবেদনে ‘দক্ষিণ এশিয়ায় সবচেয়ে বেশি ডায়াবেটিস ঝুঁকি’র কথা উল্লেখ করা হয়। কারণ এ অঞ্চলের মানুষ বেশিরভাগই সাদা চালের ভাত খেতে অভ্যস্ত।

দীর্ঘ সময় পর্যবেক্ষণে গবেষকরা দেখেছেন, ডায়াবেটিসের সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চল দক্ষিণ এশিয়া। ভৌগলিকভাবে অন্য এলাকার মানুষের থেকে এখানকার কয়েকগুণ বেশি মানুষ ডায়াবেটিসে ভুগছেন।

গবেষকরা বলছেন- যেসব মানুষ প্রতিদিন প্রায় ২৫০ গ্রাম রান্না করা সাদা চালের ভাত খেতে অভ্যস্ত, তাদের ডায়াবেটিস ঝুঁকি অন্যদের চেয়ে ১১ শতাংশ বেশি। ৩০ বছরের পার হওয়ার পরই তারা দ্রুত ডায়াবেটিসের ঝুঁকিতে পড়ে।

ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত আরেক গবেষণা প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়- যারা সবচেয়ে বেশি সাদা চালের ভাত খেতে অভ্যস্থ, তাদের ডায়াবেটিসের ঝুঁকি ২৭ শতাংশ বেড়ে যায়।

উভয় গবেষণার প্রাপ্ত ফলাফলগুলি বিবেচনা করে এটা স্পষ্ট হয় যে- সাদা চালের ভাত ডায়াবেটিস ঝুঁকিতে ফেলতে ভয়ংকর একটি উপাদান হিসেবে কাজ করে। ফলে অভ্যস্থতার কারণে সাদা চালের ভাত ডায়েটের অংশ করলেও খাওয়ার ক্ষেত্রে হতে হবে অধিক সংযমী।

লাইটনিউজ