বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

ইসলামী ব্যাংকের ব্যবসায় উন্নয়ন সম্মেলন শুরু

অর্থনৈতিক রিপোর্টার : ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের দুই দিনব্যাপী ব্যবসায় উন্নয়ন সম্মেলন শুরু হয়েছে। শনিবার (৯ জানুয়ারি) রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে প্রধান অতিথি হিসেবে এ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন ব্যাংকের বোর্ড অব ডাইরেক্টরসের চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. নাজমুল হাসান।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা। ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান মো. সাহাবুদ্দিন, এক্সিকিউটিভ কমিটির চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মো. সেলিম উদ্দিন, অডিট কমিটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সোলায়মান, রিস্ক ম্যানেজমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) ইঞ্জিনিয়ার আবদুল মতিন, পরিচালক প্রফেসর ড. মো. সিরাজুল করিম, প্রফেসর মো. কামাল উদ্দিন, মো. জয়নাল আবেদীন, প্রফেসর ড. কাজী শহীদুল আলম, সৈয়দ আবু আসাদ, মো. কামরুল হাসান, প্রফেসর ড. মোহাম্মদ সালেহ জহুর, প্রফেসর ড. মো. ফসিউল আলম, খুরশীদ উল আলম, মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন এবং মো. জাকির হোসেন বিশেষ অতিথি হিসেবে সম্মেলনে বক্তব্য দেন। আরও বক্তব্য দেন শরীআহ সুপারভাইজরি কমিটির সদস্য সচিব প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আব্দুস সামাদ।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ব্যাংকের অ্যাডিশনাল ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ কায়সার আলী এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন অ্যাডিশনাল ম্যানেজিং ডাইরেক্টর মো. ওমর ফারুক খান। ডেপুটি ম্যানেজিং ডাইরেক্টর, প্রধান কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন নির্বাহী, ঢাকাস্থ চারটি জোনের প্রধান এবং দেশব্যাপী ১১টি ভেনুতে আয়োজিত অনুষ্ঠান থেকে ভার্চুয়ালি অন্যান্য জোনপ্রধান ও ৩৭৩টি শাখার ব্যবস্থাপকগণ সম্মেলনে অংশ নেন।

সম্মেলনে জানানো হয়, গেল বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ইসলামী ব্যাংকের আমানতের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ১৮ হাজার কোটি টাকা, যা গত বছরের তুলনায় ২৩ হাজার কোটি টাকা বেশি। একই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ১ হাজার কোটি টাকা এবং গ্রাহক সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৫৯ লাখ। ২০২০ সালে ইসলামী ব্যাংক আমদানি, রফতানি বাণিজ্য ও রেমিট্যান্স আহরণ করেছে যথাক্রমে ৪১ হাজার ৯০৫ কোটি, ২২ হাজার ৪৯৭ কোটি এবং ৪৮ হাজার ৬২৭ কোটি টাকা। ২০২০ সালে ব্যাংকের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স সংগৃহীত হয়েছে। রেমিট্যান্স আহরণে ইসলামী ব্যাংকের প্রবৃদ্ধি প্রায় ৬০%।

ইসলামী ব্যাংক বর্তমানে ৩৭৩টি শাখা, ১৬১টি উপশাখা, ২২৭৫টি এজেন্ট আউটলেট, ১৭৫২টি এটিএম/সিআরএম বুথের মাধ্যমে গ্রাহকদের সেবা প্রদান করছে।

চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. নাজমুল হাসান বলেন, চলমান করোনাভাইরাসের প্রভাবে বিশ্ব আজ সংকটাপন্ন অবস্থা অতিক্রম করছে। এই পরিবর্তন ও চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হলে আধুনিক ও আসন্ন প্রযুক্তির সাথে অভিযোজিত হয়ে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে। বৈশ্বিক পরিবর্তিত পরিস্থিতি মোকাবিলা করে ২০২০ সালে ইসলামী ব্যাংকের ব্যবসায়িক সাফল্যে সন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ২০০৯ সালের বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার তুলনায় চলমান সংকটের প্রভাব ৮ গুণেরও বেশি। অর্থনৈতিক ও ব্যাংকিং সেক্টরের এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ব্যাংকের সেলফিন, এমক্যাশ, আই-ব্যাংকিংসহ অন্যান্য প্রযুক্তিসমৃদ্ধ সেবার আরও বেশি প্রসার ঘটানোর পরামর্শ দেন তিনি।

ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা বলেন, চলমান সংকট মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশের অর্থনীতি আবারও ঘুরে দাঁড়িয়েছে। এই ব্যাংক অত্যন্ত সচেতনতার সাথে আন্তরিকভাবে প্রত্যন্ত অঞ্চলে সর্বোচ্চ সংখ্যক ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিকে বিনিয়োগ সেবা দিতে সক্ষম হয়েছে।

আর্থিক খাতের প্রযুক্তি ‘ফিনটেক’ ব্যবহার করে সম্ভাব্য সকল খাত ও আর্থিক সুবিধার বাইরে থাকা জনগোষ্ঠীকে আর্থিক সেবার আওতায় আনার জন্য কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেন তিনি।