বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

বৃহস্পতিবার থেকে সীমিত পরিসরে শপিংমল ও দোকানপাট খুলতে চান ব্যবসায়ীরা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার : করোনার লাগাম টানতে এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করেছেন সরকার। যেখানে শুধু জরুরি সেবা আওতাভুক্ত প্রতিষ্ঠান ছাড়া সকল দোকানপাট ও শপিংমল বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। গত দুদিন গণ পরিবহন বন্ধ থাকলেও আজ জনসাধারণের ভোগান্তি নিরসনের কথা চিন্তা করে বুধবার (৭ এপ্রিল) থেকে ঢাকাসহ দেশের সব সিটি করপোরেশন এলাকায় গণপরিবহন চলাচলের অনুমতি দিয়েছে সরকার।

এমন পরিস্থিতিতে শপিংমল ও দোকানপাট খোলার অনুমতি দেওয়া হবে কিনা তা নিয়ে ধোঁয়াশায় পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। আগামী বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) থেকে তারা সীমিত পরিসরে শপিংমল ও দোকানপাট খুলতে চান। এখন সরকারি সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে ক্ষতির মুখে পড়ে উৎকণ্ঠায় দিন পার করা ব্যবসায়ীরা।

এদিকে এরই মধ্যে এক চিঠিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে শপিংমল-দোকানপাট খুলে দেয়ার জন্য আবেদন জানিয়েছে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি। চিঠিতে তারা আগামী বৃহস্পতিবার থেকে ক্ষুদ্র, পাইকারি, খুচরা মার্কেট ও দোকান সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত পরিসরে খোলা রাখার অনুরোধ করেছেন।

চিঠিতে তারা জানিয়েছেন, গেল বছরের (২০২০ সাল) লকডাউনে তারা ৬-৭ হাজার কোটি টাকার পুঁজি হারিয়েছেন। সেই সঙ্গে রমজান ও ঈদ উপলক্ষে ২০-২২ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ থেকেও বঞ্চিত হয়েছেন। বড় ধরনের ক্ষতির পরও করোনার মধ্যে ক্ষুদ্র, পাইকারি, খুচরা মার্কেট ও দোকানিরা দেশ ও জাতির স্বার্থে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার ব্যাপারে তাদের মানসিক প্রস্তুতি ছিল।

এতে ব্যবসায়ীরা আরও উল্লেখ করেন, কিন্তু এ বছর ক্ষুদ্র, পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা রমজান ও ঈদ উপলক্ষে কিছুটা ব্যবসার আশায় নতুন করে বিনিয়োগ করেছেন। অথচ হঠাৎ করেই লকডাউনের ঘোষণায় ফের ব্যবসায়ীরা পুঁজি হারানোর শঙ্কায় পড়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে ব্যবসায়ীদের সীমিত পরিসরে ব্যবসা করার সুযোগ না দিলে পুঁজিসহ সর্বস্ব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়বেন।

এদিকে গত তিনদিন ধরে রাজধানীর নিউমার্কেটের ব্যবসায়ীরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিক্ষোভ করে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আসছেন।