বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

বিজেপি ক্ষমতায় এলে এনআরসি করবে: মমতা

কলকাতা প্রতিনিধি : পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভায় বিজেপি ক্ষমতায় এলে রাজ্যে নাগরিকত্ব আইন (এনআরসি) বাস্তবায়ন করে বেছে বেছে মানুষকে ডিটেনশন ক্যাম্পে পাঠাবে বলে মন্তব্য করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেছেন, ‘আমি তা করতে দেব না। বাংলার সব মানুষ ভারতের নাগরিক।’

ক্ষমতায় এলে বাংলাদেশ সীমান্ত দিয়ে একটি পাখিও ঢুকতে পারবে না বলে যে মন্তব্য করেছিলেন বিজেপি নেতা ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, তার জবাবেই এ কথা বলেছেন মমতা। বুধবার রাজ্যের উত্তরাঞ্চলের কোচবিহারে নির্বাচনী জনসভায় এসব কথা বলেন তিনি।

পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চলের কোনো কোনো আসনে বাঙালি মুসলমানরা সংখ্যাগরিষ্ঠ। কিছু আসনে তাদের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য। এসব আসনে ভোট টানতে বিজেপি সীমান্ত দিয়ে অবৈধ অনুপ্রবেশ ও এনআরসির মাধ্যমে অমুসলিম শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দেওয়ার ইস্যু দুটি গুরুত্ব দিচ্ছে। এ ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি, সিএএ, এনপিআর কিছুই বাস্তবায়ন করতে দেবেন না বলে হুঙ্কার দিচ্ছেন মমতা। আর বিজেপি প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, তারা সরকার গঠন করতে পারলে সেগুলো বাস্তবায়ন করবে।

কোচবিহারের সভায় জনগণের উদ্দেশে মমতা বলেছেন, ‘এনপিআর, এনআরসির নাম করে আসামে ১৪ লাখ বাঙালিকে ভোটার তালিকা থেকে বাদ দিয়েছে। তারা কি আপনাদের ভাইবোন নয়? তারা (বিজেপি) ক্ষমতায় এলে এনআরসি করবে। বলবে তুমি বাদ, ডিটেনশন ক্যাম্পে যাও। আমি তা করতে দেব না।’

বিজেপির বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক রাজনীতি করা নিয়ে তোপ দেগে তৃণমূল কংগ্রেস বলেন, ‘ধর্ম নিয়ে ভাগাভাগি করে তারা। কখনও বাঙালির সঙ্গে রাজবংশীদের লড়াই বাধিয়ে দেয়। কিন্তু আপনারা কোনো ভাগাভাগি করবেন না। আমি ব্রাহ্মণ ঘরের মেয়ে। আগে এসব কথা বলতাম না। এখন বলতে বাধ্য হচ্ছি। আমি সবার ধর্ম মানি। আমার খাবার তৈরি করে তফসিলি ঘরের এক মেয়ে। বিজেপি এটা চায় না।’

মমতা আরও বলেন, ‘বিজেপি ছদ্মবেশী। ভোটের সময় মন্দিরে মাথা ঠোকে আর পেছনে খারাপ কাজ করে। তারা ভোট নিতে টাকা দিচ্ছে। টাকা নিন, তবে ভোট দিন তৃণমূলের জোড়াফুলে।’

এরপর বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘তারা বাংলা জানে না, বাঙালি সংস্কৃতি জানে না। আসাম থেকে গুন্ডা এনে যদি ভয় দেখায়, তাহলে বিজেপিকে ভোট দেবেন? আসামের লোকদের ডিটেনশন ক্যাম্পে রেখেছে। জিতলে তো আপনাদেরও একই অবস্থা করবে। ফলে বিজেপিকে ভোট দেবেন না।’

এদিকে কেন্দ্রীয় বাহিনীর একাংশের বিরুদ্ধে বিজেপির হয়ে কাজ করার অভিযোগ করে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে মমতা বলেন, ‘কেন্দ্রীয় বাহিনীর সদস্যরা গণ্ডগোল করলে নারীরা যেন তাদের ঘেরাও করে।’ এ মন্তব্যের পর মমতার বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ করেছে বিজেপি। কমিশন থেকে মমতাকে চিঠি পাঠিয়ে কেন এমন মন্তব্য করেছেন, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তার ব্যাখ্যা চেয়েছে কমিশন।

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন হচ্ছে আট ধাপে। ইতোমধ্যে তিন ধাপের ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। গত মঙ্গলবার তৃতীয় ধাপের ভোটে ব্যাপক সংঘর্ষ ও সহিংসতা হয়েছে। নির্বাচনী পরিবেশ এখন উত্তপ্ত। আগামী ২৯ এপ্রিল অষ্টম ধাপের ভোট গ্রহণ শেষে ২ মে একযোগে সব আসনের ফল ঘোষণা হবে।