বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

অপরিবর্তিত খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা

স্টাফ রিপোর্টার : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত আছে। গত এক সপ্তাহ ধরে তার শরীরে করোনার কোনো উপসর্গ নেই। বর্তমানে তাকে নন-করোনা ইউনিটে রেখে আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, চোখের সমস্যা এবং দুই হাঁটুর জয়েন্ট প্রতিস্থাপনজনিত জটিলতার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে।

তার চিকিৎসকরা বলছেন, গত ২৭ এপ্রিল থেকে এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি খালেদা জিয়ার চিকিৎসা চলছে ১০ সদস্যের মেডিকেল বোর্ডের তত্ত্বাবধানে। এই চারদিনে তার আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস ও হৃদরোগের বেশকিছু শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। আরও কিছু পরীক্ষা বাকি আছে। সেগুলো আগামী ১-২ দিনের মধ্যে শেষ হবে। এরপর বোর্ডের চিকিৎসকরা মিটিংয়ে বসে রিপোর্টগুলো পর্যালোচনা করে তার চিকিৎসার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।

মেডিকেল বোর্ডের সিদ্ধান্তের পর তাকে বাসায় রেখে এবং প্রয়োজনে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হবে। একইসঙ্গে করোনা পরিস্থিতি মোটামুটি স্বাভাবিক হলে এবং সরকারের অনুমতি পাওয়া গেলে বিদেশে নিয়েও তার চিকিৎসা করানো হতে পারে।

খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. জাহিদ হোসেন ঢাকা পোস্টকে বলেন, ম্যাডামের শারীরিক অবস্থা অপরিবর্তিত আছে। তিনি আগের মতোই ভালো এবং সুস্থ আছেন। তার শরীরে করোনার কোনো উপসর্গ নেই। তিনি করোনার বিপদ থেকে মুক্ত আছেন।

তিনি আরও বলেন, হাসপাতালে ম্যাডামের অন্যান্য অসুস্থতার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। যা তিনি কারাগারে যাওয়ার পর করা সম্ভব হয়নি। এরমধ্যে কিছু পরীক্ষার রিপোর্ট হাতেও পেয়েছি। আরও কিছু পরীক্ষার রিপোর্ট বাকি আছে। এরপর চিকিৎসকদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাকে বাসায় নেওয়া হবে।

হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর খালেদা জিয়ার সিটিস্ক্যান, ইসিজি, ইকোসহ হৃদরোগের বেশকিছু পরীক্ষা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন ডা. জাহিদ।

কার্ডিওলজিস্ট ডা. শাহাবুদ্দিন তালুকদারের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন খালেদা জিয়ার পরিচর্যা করার জন্য হাসপাতালে আছেন তার গৃহকর্মী ফাতেমা ও আরেকজন নারী স্টাফ। এছাড়া তাকে দেখতে নিয়মিত হাসপাতালে যান মেডিকেল বোর্ডের অন্তর্ভুক্ত তার দুই ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. জাহিদ হোসেন ও ডা. আল মামুন।