বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

সাইফ ফেরালেন করুণারত্নকে

ক্রীড়া ডেস্ক : সংক্ষিপ্ত স্কোর: শ্রীলঙ্কা: দ্বিতীয় ইনিংস- ১১২/৪ (নিসানকা ০*, ধনাঞ্জয়া ৩০*); প্রথম ইনিংস ৪৯৩/৭ ডিক্লে.। বাংলাদেশ: প্রথম ইনিংস- ২৫১

আগের ৩ টেস্টে খেলে মাত্র ১২ বল করেছিলেন। পাননি কোনো উইকেটের দেখা। নিজের চতুর্থ টেস্টে খেলতে নেমে পেলেন অভিষেক উইকেটের দেখা। তাও শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক করুণারত্নের উইকেট। করুণারত্নে এগিয়ে এসে ফ্লিক করতে চেয়েছিলেন; শর্ট লেগে ধরা পড়েন ইয়াসির আলী রাব্বির হাতে। ম্যাথুজের পর করুণারত্নের ক্যাচও ধরলেন এই পরিবর্তিত ফিল্ডার।

করুণারত্নের অনন্য রেকর্ড

শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ করুণারত্নে ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো কোনো সিরিজে ৪০০ রানের বেশি করেছেন। প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ২৪৪, দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে ১১৮ ও দ্বিতীয় ইনিংস হাফসেঞ্চুরি করে অপরাজিত আছেন। এই সিরিজে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকায় তিনি সবার ওপরে। তার পরে আছেন তামিম ইকবাল; তার রান ২৫৬।

৫৯ বলে করুণারত্নের ৫০

আগ্রাসী ব্যাটিং করে মাত্র ৫৯ বলে দ্বিতীয় ইনিংসে হাফসেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন লঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ করুণারত্নে। তাইজুলকে চার মেরে ক্যারিয়ারের ২৬ তম ফিফটির দেখা পান। তার ইনিংসটি সাজানো ৬টি চার ও ১টি ছয়ে। তার এমন ব্যাটিংয়ে স্বাগতিকরা বড় লিডের পথে।

৩০০ টপকালো শ্রীলঙ্কার লিড

মেহেদি হাসান মিরাজের বলে মিডউইকেটে চার মেরে দলীয় লিড ৩০০ পার করেন দিমুথ করুণারত্নে। দিনের শুরু থেকেই করুণারত্নে খেলছেন হাত খুলে। বাউন্ডারির সঙ্গে হাঁকিয়েছেন ওভার বাউন্ডারিও। চেষ্টা করছেন দ্রুত রান তুলে লিড বড় করার।

শুরুতেই ম্যাথুজকে ফেরালেন তাইজুল

চতুর্থ দিনের সপ্তম ওভারেই স্বস্তি এনে দেন তাইজুল ইসলাম। তার ফ্লাইট ডেলিভারিতে পরাস্ত হয়ে শর্ট লেগে ইয়াসির আলী রাব্বির হাতে ক্যাচ দিতে বাধ্য হন আগের দিনের অপরাজিত ব্যাটসম্যান অ্যাঞ্জেলা ম্যাথুজ। রাব্বী পরিবর্তিত ফিল্ডার হিসেবে মাঠে নামেন। ম্যাথুজের ব্যাট থেকে আসে ১২ রান।

লঙ্কানদের দ্রুত অলআউটের লক্ষ্যে মাঠে বাংলাদেশ

ওয়ালটন শ্রীলঙ্কা-বাংলাদেশ দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম দুই দিন ছিল ব্যাটসম্যানদের। যাতে ফায়দা নিয়েছে শ্রীলঙ্কা। তৃতীয় দিন ঠিক উল্টো। ১৩ উইকেট পড়েছে এই দিনে, যাতে স্পিনারদের পকেটে গেছে ১০ উইকেট। দিন শেষে সুবিধাজনক অবস্থানে শ্রীলঙ্কা।

২৪২ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস খেলতে নামা শ্রীলঙ্কার ব্যাটিং লাইনে বাংলাদেশ আঘাত করেছে ১৫ রানের মধ্যে ২ উইকেট নিয়ে। ২৫৯ রানের লিড নিয়ে চতুর্থ দিন মাঠে নেমেছে শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশি বোলারদের লক্ষ্য লঙ্কানদের কম রানে আটকে দেওয়া, দ্রুত অলআউট করা; যাতে লিডের বোঝা না বড় হয়। তৃতীয় দিনের মতো চতুর্থ দিনও রাজত্ব করতে পারেন স্পিনাররা। মেহেদি হাসান মিরাজ-তাইজুল ইসলামরা কী পারবেন?