বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

৩৪ এ আক্ষেপ ঘুচবে মেসির?

স্পোর্টস ডেস্ক : মাত্র ছয় দিন বাকি। বার্সেলোনার সঙ্গে চুক্তি শেষ হতে চলেছে লিওনেল মেসির। ৩০ জুনের পর ফ্রি এজেন্ট হয়ে যাচ্ছেন আর্জেন্টাইন মহাতারকা। আগামী মৌসুমে চিরচেনা ন্যু ক্যাম্পেই থাকছেন নাকি পরিবার নিয়ে পাড়ি জমাবেন নতুন কোনও ঠিকানায়? উত্তর পেতে অপেক্ষা করতে হবে।

আপাতত গুঞ্জন নিয়েই আলোচনা করা যাক। ট্রান্সফার উইন্ডো ওপেন হওয়ার পর অনুমানের উপর নির্ভর করতে হয়। প্রিয় তারকারা কোথায় যাচ্ছেন ভক্ত-সমর্থকদের নজরদারি তো চলছেই।

২০০৪ সালে পেশাদার ফুটবলে যাত্রা শুরু হয় মেসির। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে খেলেছেন শুধু বার্সার জার্সিতেই।

কাতালান দলটির সবচেয়ে বেশি ম্যাচ ও গোলের মালিক তিনিই। ৫২০ ম্যাচে ৪৭৪ গোল করেছে। হয়ে ১০টি লা লিগা জিতেছেন। চারটি চ্যাম্পিয়নস লিগ, তিনটি উয়েফা সুপার কাপ, তিনটি ক্লাব বিশ্বকাপ ছাড়াও জিতেছেন সাতটি স্প্যানিশ কাপের ট্রফি।

ক্লাব কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সম্পর্কে ফাটল ধরায় গেল মৌসুমই বার্সাকে বিদায় জানিয়ে দিয়েছিলেন। যদিও শেষ পর্যন্ত থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন রেকর্ড ছয়বারের ব্যালন ডি’ অর জয়ী।

বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) ৩৪ এ পা রাখতে চলেছেন মেসি। ইংলিশ গণমাধ্যম দ্য সান দাবি করছে, বার্সার ইতিহাসের সবচেয়ে তারকার জন্মদিনই নতুন ঘোষণা নিয়ে হাজির হচ্ছেন ক্লাব প্রেসিডেন্ট হুয়ান লাপোর্তা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আরও দুই মৌসুমের জন্য নীল-মেরুন জার্সিতে খেলতে দেখতে দেখা যাবে মেসিকে। সে বিষয়টিই গণমাধ্যমের সামনে তুলে ধরতে চলেছে ক্লাবটি।

বর্তমানে কোপা আমেরিকার ম্যাচ খেলতে ব্রাজিলে অবস্থান করছেন মেসি। প্রথম ম্যাচে চিলির বিপক্ষে ১-১ গোলে ড্র করে আর্জেন্টিনা। দ্বিতীয় ম্যাচে উরুগুয়ে ও তৃতীয় ম্যাচে প্যারাগুয়েকে হারিয়ে দেয় মেসির দল।

প্যারাগুয়ের হয়ে আর্জেন্টাইনদের হয়ে ১৪৭তম ম্যাচে নেমেছিলেন লিও মেসি। সাবেক সতীর্থ হ্যাভিয়ের মাশ্চেরানোকে ছুঁয়েছেন তিনি। আকাশী-সাদাদের হয়ে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার রেকর্ডটি ভাগ করছেন তারা। অন্যদিকে ৭৩ গোল করে দেশের হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতা তিনি।

ক্লাব জার্সির মতো সংখ্যা সমীকরণে জাতীয় দলেও এগিয়ে। তবে ট্রফির ক্ষেত্রে পুরোটাই বিপরীত। জার্মানির কাছে ২০১৪ বিশ্বকাপের ফাইনালে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হয়। দক্ষিণ আমেরিকার সর্বোচ্চ ফুটবল টুর্নামেন্ট কোপায় তিনবার ফাইনালে উঠেও শিরোপা তুলতে ব্যর্থ হন।

চলমান এই টুর্নামেন্টে সুযোগ রয়েছে আর্জেন্টিনার হয়ে আক্ষেপ ঘোচানোর। আলবিসেলেস্তেদের পক্ষে অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপ ও অলিম্পিকে স্বর্ণ জয়ের অভিজ্ঞতা রয়েছে। এবার সিনিয়র পর্যায়ে ক্যারিয়ারের প্রথম আন্তর্জাতিক ট্রফি জয়ের হাতছানি রয়েছে মেসির সামনে।