বাংলা ও বিশ্বের সকল খবর এখানে
শিরোনাম

আজ থেকে পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত হচ্ছে সুন্দরবন

স্টাফ রিপোর্টার : দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর আজ বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) থেকে সুন্দরবন পর্যটকদের ভ্রমণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হচ্ছে। শর্তসাপেক্ষে ১ সেপ্টেম্বর থেকে সুন্দরবন দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে ফুটট্রেইলার, ওয়াচটাওয়ারসহ বিভিন্ন স্থাপনা ব্যবহার না হওয়ায় ময়লা জমে ও ভেঙে সেগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

পূর্ব সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন গণমাধ্যমকে জানান, ভ্রমণকালে মানতে হবে সামাজিক দূরত্ব, স্বাস্থ্যবিধি, মাস্ক পরিধান ও ২৫ জন করে গ্রুপ ভাগ করে নৌযান থেকে বনে নামতে হবে এবং ঘুরতে হবে। একসঙ্গে বেশি লোক নামা ও ঘোরাফেরা করা যাবে না। যারা এসব শর্ত ভঙ্গ করবেন অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বন বিভাগ।

নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্তের পর থেকে ট্যুরিস্ট কম্পানিগুলো নতুন আঙ্গিকে কাজ শুরু করেছে। পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এবং নিজস্ব গ্রুপে নানা অফার সংযুক্ত করে আমন্ত্রণ জানাচ্ছে ট্যুর অপারেটরগুলো। ভ্রমণপিপাসুরাও দীর্ঘদিনের বন্দিদশা থেকে একটু প্রশান্তির আশায় ট্যুর অপারেটরদের সঙ্গে অগ্রিম যোগাযোগ ও বুকিং দিতে শুরু করেছে।

ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব সুন্দরবন খুলনার সাধারণ সম্পাদক এম নাজমুল আযম ডেভিড গণমাধ্যমকে বলেন, খুলনায় প্রায় শতাধিক ট্যুর অপারেটর আছে। এরমধ্যে ৬৩টি রেজিস্ট্রি করা। পর্যটনের সঙ্গে সম্পৃক্ত আছেন প্রায় ১৫০০ কর্মকর্তা ও কর্মচারী। বনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকায় ট্যুর অপারেটরদের বিশাল ক্ষতি হয়েছে। কিছুটা হলেও তারা এখন ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করবেন।

এদিকে দুই মাসের অবরোধ শেষে আজ থেকে আবার শুরু হচ্ছে সুন্দরবনে মৎস্য ও কাঁকড়া আহরণ। এরই মধ্যে সব প্রস্তুতি শেষ। বনে যাওয়ার অপেক্ষায় বাগেরহাটের শরণখোলার পাঁচ হাজারের বেশি জেলে। বন অফিস থেকে পাস পারমিট নিয়ে রওনা হবেন তাঁরা। সুন্দরবনের মাছ, কাঁকড়া ও অন্যান্য জলজ প্রাণীর প্রজননের জন্য ১ জুলাই থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত দুই মাস সব ধরনের বনজসম্পদ আহরণ নিষিদ্ধ করেছিল বন বিভাগ।

বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারির কারণে গত বছরের ২৫ মার্চ থেকে সুন্দরবনে পর্যটক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করে বন বিভাগ। এ ছাড়া সুন্দরবনের মাছের প্রজনন মৌসুম শুরু হওয়ায় এ বছরের ২৪ জুন থেকে ৩০ আগস্ট পর্যন্ত জেলেদেরও বনে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়।