বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০৭:৫৮ পূর্বাহ্ন

ধনে পাতার গুণাগুন

লাইটনিউজ রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২০ মে, ২০২০

 

ধনে পাতার স্বাদ ও গন্ধের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে থাকেন না এমন ব্যক্তি কিন্তু খুব কম-ই আছে। প্রায় সব ধরনের তরকারিতেই ধনে পাতা স্বাদ বৃদ্ধি করে থাকে; সেই সাথে যুক্ত করে অসাধারণ ঘ্রাণ। ধনে পাতা কি শুধু স্বাদে গন্ধেই অনন্য? খাদ্য ও পুষ্টিগুণ বিচারে ধনে পাতার উপকারিতা বর্ণনাতীত। ধনে পাতার পুষ্টিগুণ ধনে পাতার উপকারিতা না জেনেই অধিকাংশ মানুষ নিয়মিত বিভিন্ন তরকারিতে এটি খেয়ে আসছে।

ধনে পাতায় রয়েছে ১১ জাতের এসেনশিয়াল অয়েল, ৬ ধরণের অ্যাসিড (অ্যাসকরবিক অ্যাসিড যা ভিটামিন সি নামেই বেশি পরিচিত), ভিটামিন, মিনারেল এবং অন্যান্য উপকারী পদার্থ। ধনে পাতা কী কী উপকার করে থাকে? ধনে পাতায় উপস্থিত সিনিওল এসেনশিয়াল অয়েল এবং লিনোলিক অ্যাসিড থাকে যার মধ্যে অ্যান্টিরিউম্যাটিক এবং অ্যান্টি-আর্থ্রাইটিক বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান। এরা ত্বকের জ্বালাপোড়া এবং ফুলে যাওয়া কমাতে সাহায্য করে। ডিসইনফেকট্যান্ট, ডিটক্সিফাইং বা বিষাক্ততা রোধকারী, অ্যান্টিসেপটিক, অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান থাকার কারণে এরা বিভিন্ন স্কিন ডিজঅর্ডার বা ত্বকের অসুস্থতা (একজিমা, ত্বকের শুষ্কতা এবং ফাঙ্গাল ইনফেকশন) সারাতে সাহায্য করে।

ত্বক সুস্থ ও সতেজ রাখতে তাই ধনে পাতার উপকারিতা অনেক। ধনে পাতায় থাকে লিনোলিক, অলিক, পাল্মিটিক, স্টেরিক এবং অ্যাসকরবিক অ্যাসিড যা শরীরের কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। বর্নেওল এবং লিনালোল অন্ত্রের কার্যকারিতা স্বাভাবিক রাখতে সহায়তা করে। ফলে যকৃত ও বাওয়েল সুস্থ থাকে এবং ডায়রিয়া কমাতেও সাহায্য করে।

মাইক্রোবিয়াল এবং ফাঙ্গাল প্রতিক্রিয়ার কারণে ডায়রিয়া হোলে সেটা সারিয়ে তুলে। বমি বমি ভাব, বমি হওয়া এবং অন্যান্য পাকস্থলীর সমস্যা সমাধানে ধনে পাতার উপকারিতা অপরিসীম। ক্যালসিয়াম আয়ন এবং কলিনার্জিক বা অ্যাসেটিকোলিন উপাদান মিলে আমাদের শরীরের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে। মুখের আলসার দূর করতে সহায়তা করে। ধনে পাতায় প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকায় এরা রক্তশূন্যতা দূর করতে সাহায্য করে। অ্যান্টি হিস্টামিন উপাদান থাকায় এরা অ্যালার্জি বা এর ক্ষতিকারক প্রভাব থেকে দূরে রাখে। খাবারের মাধ্যমে সৃষ্ট সবচেয়ে ভয়াবহ রোগ সালমোনেলা।

ধনে পাতায় উপস্থিত ডডেসিনাল উপাদান প্রাকৃতিক উপায়ে সালমোনেলা জাতীয় রোগ সারিয়ে তুলতে অ্যান্টিবায়টিকের থেকে দ্বিগুণ কার্যকর। ধনে পাতায় প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম আছে। হাড় মজবুত এবং সুস্থ রাখতে ধনে পাতার উপকারিতা অনেক। এর মধ্যে থাকা অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল, অ্যান্টিইনফেকসাস্‌, ডিটক্সিফাইং, ভিটামিন সি এবং আয়রন গুটিবসন্ত প্রতিকার এবং প্রতিরোধ করে। মহিলাদের মাসিকের সমস্যা সমাধানে সহায়তা করে। ধনে পাতায় উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন এ, ভিটামিন সি এবং মিনারেল (যেমনঃ ফসফরাস) চোখের যত্নে খুবই উপকারী। এর মধ্যে থাকা মাইক্রোবিয়াল উপাদান ছোঁয়াচে রোগ (যেমনঃ কনজাংটিভাইটিস) থেকেও চোখকে রক্ষা করে। এরা শরীরের ইনসুলিন নিঃসরণের মাত্রা বাড়িয়ে রক্তে সুগার এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে। বিভিন্ন ভেষজ পদার্থের সাথে মিশিয়ে যৌনশক্তি বৃদ্ধি করতে ধনে পাতার উপকারিতা অনেক। সতর্কতা কিছু কিছু ক্ষেত্রে এরা অ্যালার্জিক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে।

ধনে যেমন একটি মসলা তেমনি এর পাতা একটি ভালো সবজি। ধনে পাতা স্বদে গন্ধে অতুলনীয়। ধনে পাতায় প্রচুর পরিমান ভিটামিন c ও k পাওয়া যায়। ধনে পাতায় অনেক উপকারিতা লুকিয়ে আছে। আসুন জেনে নিই ধনে পাতার আরো কিছু যাদুকরী গুণ সম্পর্কে-

হাড় মজবুত করে:

ধনে পাতায় প্রচুর পরিমানে ক্যালসিয়াম থাকে। যা হাড় গঠন ও মজবুত করতে সহায়তা করে।

চোখের ছানি পড়া রোধ করে:

ধনে পাতায় রয়েছে বিটা ক্যারোটিন, এটি চোখ ভালো রাখতে সহায়তা করে এবংচোখে ছানি পড়া প্রতিরোধ করে।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রনে রাখে:

এক গবেষনায় দেখা গেছে, ধনে পাতা খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে ভালো কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রন রাখে।

এন্টি মাইক্রোবিয়ার গুন:

ধনে পাতায় আছে ছত্রাক,ব্যাকটেরিয়া ও ইস্ট প্রতিরোধি উপাদান যা বিভিন্ন সংক্রমনের হাত থেকে রক্ষা করে।

রক্তের ঘাততি পুরন করে:

ধনে পাতায় আছে প্রচুর পরিমানে আয়রন যা রক্ত সল্পতা দুর করে। তবে রান্না না করে কাচা খেতে পারলে বেশি উপকার হয়। যেমন সালাতের সাথে অথবা ভর্তা করে।

ক্যানসার নিরাময়ে সহায়তা করে:

ধনে পাতায় আছে বিটা ক্যারোটিন, ভিটামিন সি সহ প্রয়োজনীয় সব উপাদান। যা ক্যানসার নিরাময়ে সহায়তা করে।

ঘুমের জন্য সহায়ক :

রাত্রে যাদের ঘুম হয় না তারা ধুনে পাতা খেতে পারেন ধনে পাতায় আছে বিভিন্ন ধরনের ফাইটোনিউট্রিয়েন্টসের অসাধারন সমন্বয় যা নার্ভকে শীতল রাখে এবং ঘুমের জন্য ভালো কাজ করে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন:

ধনে পাতায় থাকা বিভিন্ন উপাদান রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রনে সহায়তা করে।

ডায়বেটিসের জন্য ধনে পাতা অসাধারন কাজ করে:

যাদের রক্তে চিনির মাত্রা বেশি তাদের রক্তে চিনির মাত্রা কমাতে ধনে পাতা অসাধারন কাজ করে। নিয়মিত ধনে পাতা খেলে ইনসুলিন নি:সরনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়।

লাইট নিউজ

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Lightnewsbd

Developer Design Host BD